এরিক ব্রাইটিজ। হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড

ERIC BRYTESE

HENRY RIDER HAGGARD

শৌর্য,বীর্য ও সৌন্দর্যে তার কোনো জুড়ি ছিলোনা। অকৃপণ হাতে স্রষ্টা এরিককে সবই দিয়েছিলেন কেবল একটি ক্ষেত্রে অসম্ভব কৃপণতা দেখিয়েছেন। তা হলো ‪‎সৌভাগ্য‬ ।

গাদরাদা দ্যা ফেয়ার আর পিতৃহীনা সোয়ানহিল্ড….একই সাথে জন্ম নেওয়া দুই সৎ বোন। যাদের মাঝে কেবল দুটা ক্ষেত্রেই মিল আছে… তা হলো ‪রক্ত‬ আর ‪ঘৃণা‬ । দুজনেই ভালবাসে এরিককে। সোয়ানহিল্ড এর মা ডাইনি গ্রোয়া তাকে পরামর্শ দেয় গাদারাদা কে সরিয়ে ফেলতে সেটা যেভাবেই হোক। তাঁদের দুজনের বাবা পুরোহিত আসমুন্ড… কোনো মেয়ের সাথেই এরিকের সম্পর্কে রাজিনা। যদিও তিনি এরিককে পছন্দ করতেন।

অবশেষে যখন অনেক লড়াই, বীরত্ব আর শৌর্যের পরিচয় দিয়ে প্রিয়তমাকে জয় করলো সৌভাগ্য আবার প্রতারণা করলো। মিথ্যে অপবাদে, আউটল হয়ে দেশছাড়া হলো এরিক!! বেরিয়ে পড়লো দীর্ঘ সমুদ্রযাত্রায়।  গল্পে আছে বিখ্যাত “হোয়াইট -ফায়ার”এর জন্য এরিকের লড়াই, আছে ভয়ংকর বেয়ারসার্ক এর উৎপাত থেকে গ্রামবাসীকে রক্ষা, আছে সুদূর সমুদ্রযাত্রায় আয়ারল্যান্ড, লন্ডন ঘুরার বিভিন্ন ঘটনা আর সবশেষে তার সেই দূর্ভাগ্যের কাছে হেরে যাওয়ার গল্প। এভাবেই প্রতিবার যখনই প্রিয়মানুষটির কাছাকাছি আসে… দূর্ভাগ্যের চাকায় প্রতিবার পিষ্ঠ হয় এরিক। এভাবেই একসময় মৃত্যুর বীভৎসতা, বিশ্বাসঘাতকতা, ডাকিনীবিদ্যার প্রভাব, অনেক

অনেক দূরত্ব আর দূর্ধর্ষ থ্রিলের মাঝে চিকন সুতার উপর এগিয়ে চলে এরিকের নিটোল ভালোবাসা । প্রতিহিংসা, হত্যাযজ্ঞ আর।মৃত্যুবীভিষিকায় রক্তে লাল হয় পুরো মোসফেল।

DOWNLOAD

Popular Posts